করোনার ঝুঁকিতেই ঈদে ঘরে ফিরছে কাঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটের যাত্রীরা

মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট হয়ে করোনার ঝুঁকিতেই ঈদে ঘরে ফিরছে দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলার মানুষ। ঢাকা থেকে ঈদুকে সামনে রেখে ফিরতে শুরু করেছে শ্রমজীবি, চাকরিজীবি সাধারন মানুষ। লঞ্চ স্পিডবোট বন্ধ থাকায় বাড়তি চাপ বেড়েছে ফেরিতে। ফেরিগুলো যানবাহন পারাপারের পাশাপাশি যাত্রী পারাপারে হিমশিম  খাচ্ছে। এদিকে ঘাটের মানুষের যাতায়াত দেখলে মনে হয় না যে, করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষের চলাচলে আছে কোন বাধা নিষেধ। ঘাট  এলাকার যাত্রীরা জানান, চাকরি বাচাতেই জীবনের ঝুঁকি নিয়েই ঢাকার উদ্দেশ্যে যেতে হচ্ছে।

ঘাট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া বন্ধে সারাদেশে গনপরিবহন বন্ধ থাকায় এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ থেকেই ঘাট দিয়ে মানুষ যেমনি যাচ্ছে তেমনি বাড়ির উদ্দেশ্যে যাচ্ছে। ভোরের আলো ফোটার সাথে সাথে শুরু হয়েছে পারাপারের প্রতিযোগিতা। সকাল থেকে রাজধানী থেকে বিভিন্ন উপায়ে ঘাটে এসে জড়ো হয়েছে যাত্রীরা। যাত্রীদের ভীড়ে যেন করোনা উৎসবে পরিণত হয় কাঠালবাড়ি ঘাটে। দেশব্যাপী করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার সতর্ক থাকলেও পদ্মা নদীর কাঠালবাড়ি -শিমুলিয়া নৌরুটে যেন পারপারে প্রতিযোগিতায় লেগেছে হাজার হাজার মানুষ।

বিআইডব্লিউটিসি কাঠালবাড়ি ঘাটের সহকারি  ব্যবস্থাপক  সামসুল আরেফিন বলেন, সকাল থেকেই রাজধানী ঢাকা থেকে বিভিন্ন উপায়ে সাধারণ মানুষ ঘাটে এসে ভিড় করছে। জরুরী পরিবহনের জন্য ফেরি উন্মুক্ত করলেই হুমড়ি খেয়ে যাত্রীরাও উঠছে ফেরিতে। ১৭ টি ফেরীর মধ্য ৩ টি রোরো,৩ টি ডাম্ব,৩ টি কে ধরন ও ১ টি মধ্যম ফেরীর মাধ্যমে যাত্রী ও যানবাহন পার করানো হচ্ছে।

বিষয়:   স্থানীয় সংবাদ       শনিবার ২৩ মে, ২০২০